নকলায় আদালতের আদেশ অমান্য করে বহুতল ভবন নির্মানের অভিযোগ প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে

Views
Charu Barta24 । । চারু বার্তা ২৪

স্টাফ রিপোর্টার:
শেরপুর জেলার নকলা পৌর এলাকায় বিল্ডিং কোড না মেনে এবং আদালতের আদেশ উপেক্ষা করে এক অসহায় পিরবারের বসতঘরের সীমানার ভিতর ঢুকে সীমানা প্রাচীর ও বহুতল নির্মানের অভিেযাগ ওঠেছে নকলা পাইলট স্কুলের প্রধান শিক্ষক ওমর আলীর বিরুদ্ধে। তিনি প্রভাব খাটিয়ে ওই অসহায় পরিবারের বসতবাড়ির জমি দখল করে নেয়ার অভিযোগও উঠেছে স্থানীয় ওই প্রভাবশালী প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। দীর্ঘদিন থেকে পৈত্রিক সূত্রে বসবাস করে আসা স্থানীয় নিরিহ নারী আন্জুয়ারা বেগম অরফে শাপলা তার বসতবাড়ির পাশে প্রভাবশালীর জমি থাকায় তারা একের পর এক দখল নেওয়ার পায়তারা করছেন এবং কি জমির সিমানার খুটি উঠিয়ে দখলে নিয়ে ভবন তৈরির কাজ ইতিমধ্যে শুরু করেছেন। বাধা দিতে গেলে ওই প্রভাবশালী সহ তার সাথে থাকা একটি কুচক্রী মহল উগ্র হয়ে মারতে আসেন এবং প্রতিনিয়তো হত্যার হুমকি দেন। ইতিমধ্যে শাপলা বেগমকে তিন দফায় মাইরিপট করে আহত করার অভিযোগ করেছেন তার পরিবার। প্রভাবশালী হওয়ায় স্থানীয় বিচার শালিশি কোন তোয়াক্কা করেন না তারা। শুধু তাইনয় ওই প্রভাবশালী প্রধান শিক্ষকের পক্ষের কিছু লোক কেউ ওই এলাকায় গেলে নানাভােব মিথ্যা অভিযোগ করে ওই নিরীহ পরিবারের বিরুদ্ধে। এভাবেই চলছে আসছে প্রতিনিয়তো।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, আন্জুয়ারা অরফে শাপলার পরিবার স্থানীয়দের মাধ্যমে কোন সমাধান না পেয়ে আদালতের দিকে অগ্রসর হন। পরে তারা গেলো সেই ২০১৮ সালে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ২৪৬/২০১৮ নং মোকাদ্দমা দায়ের করেন এখনো সেটি বিচারাধীন রয়েছে।

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট অভিযোগকারীর নালিশি ভূমি দখলে আছে কিনা তার দেখার জন্য সরেজমিনে তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য নকলা সদর ইউনিয়ন ভূমি অফিসকে পত্র প্রেরন করেন। ইউনিয়ন ভূমি উপসাহ কর্মকর্তা নকলা সদর ইউনিয়ন ভূমি তদন্তে গিয়ে স্থানীয় নিরপেক্ষ লোকদের সাথে কথা বলে নালিশি (বিআরএস) ৭৯০ দাগের ভূমি সেই অভিযোগকারীর দখলে আছেন। পরে তদন্তকারীগণ প্রতিবেদন দাখিল করেন। পরে বিজ্ঞ আদালত বিবাদীগণের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আদেশ করেন। বর্তমানে সেটি বিচারাধীন থাকার পরও তা অমান্য করে ভবন তৈরি নির্মান কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন সেই প্রভাবশালী উমর আলী মাষ্টার, কাজল রেখা ও রফিকুল ইসলাম আর্মি। শুধু তাই নয়, তারা বিল্ডিং কোডও মানছে না।

একদিকে আদালতকে অমান্য অপরদিকে প্রতিনিয়তো হুমকি এনিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন অসহায় নিরিহ আন্জুয়ারা বেগম অরফে শাপলার পরিবার। তারা এর একটি সমাধান চান।

অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক ওমর আলী জানান, আমার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সঠিক নয়। আমি আমার সীমানার মধ্যেই আছি।
স্থানীয় থানা পুলিশকে জানানো হলেও তারাও রহস্যজনক কারণে কোন ভূমিকা রাখছেননা বলে অভিযোগ শাপলার পরিবারের।
এব্যাপারে নকলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোশফিকুর রহমান জানান, আমরা জমির বিষয় নিয়ে কিছু করতে পারি না। আদালতের নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি জানানো হলে তিনি বলেন, বিষয়িট দেখছি।

Charu Barta24 । । চারু বার্তা ২৪

মন্তব্য করুন