নালিতাবাড়ীর নন্নীবাজারে জাল টাকাসহ আটক-১

Views
Charu Barta24 । । চারু বার্তা ২৪

আমিরুল ইসলাম, নালিতাবাড়ী (শেরপুর):

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে জাল টাকাসহ মেহেদী হাসান (২৫) নামে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে স্থানীয়রা। ২৩ এপ্রিল শুক্রবার বিকেলে উপজেলার নন্নী বাজার থেকে তাকে আটক করা হয়। আটক মেহেদী হাসানের বাড়ি ময়মনসিংহের গৌরিপুর উপজেলার রাজগৌরিপুর এলাকায় বলে জানায় সে। পরে আটক য্বুককে গ্রাম পুলিশ দিয়ে থানায় পাঠানো হলেও থানা পৌঁছার পূর্বেই ‘মহানুভবতা’ দেখিয়ে তাকে ছেড়ে দিয়েছেন স্থানীয় এক সংবাদকর্মী।

জানা যায়, উপজেলার নন্নী বাজারে শুক্রবার বাজারের দিন থাকায় মেহেদী হাসান এক দোকানে দই কিনে ১ হাজার টাকার জাল নোট দেয় এবং বাকি টাকা ফেরত নেয়। পরে সুপারির দোকান থেকে ৪০ টাকার সুপারি কিনে আরেকটি ১ হাজার টাকার জাল নোট দেয় এবং বাকি টাকা ফেরত নিয়ে আবারও অন্য দোকানে মসলা কিনতে গিয়ে আবারও ১ হাজার টাকার জাল নোট দিলে দোকানদারের সন্দেহ হয়। এক পর্যায়ে ওই দোকানদার ও স্থানীয় জনতা তাকে আটক করে। আটকের পর জাল টাকা কারবারী ওই যুবককে নন্নী ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে নেওয়া হয়। ইউপি চেয়ারম্যান একেএম মাহবুবুর রহমান রিটন ময়মনসিংহ জেলার গৌরীপুর থানায় যোগাযোগ করলে তাকে চিনতে পারেনি ওই থানা পুলিশ। পরে বিষয়টি নালিতাবাড়ী থানা পুলিশকে অবহিত করেন ইউপি চেয়ারম্যান। কিন্তু ইফতারের আগ মুহূর্ত পর্যন্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছার পূর্বেই তাকে ইজিবাইকযোগে গ্রাম পুলিশের মাধ্যমে নালিতাবাড়ী থানার উদ্দেশ্যে পাঠানো হয়। কিন্তু পথিমধ্যে ওই যুবক ইজিবাইক থেকে নদীতে ঝাঁপ দেয়। এরপরও তাকে গ্রাম পুলিশ ও স্থানীয়রা আটক করে থানায় নিয়ে যেতে থাকলে পথিমধ্যে এক সাংবাদিক ইজিবাইক থামিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে তার হাতে ১শ টাকার একটি নোট দিয়ে তাকে ছেড়ে দেয় বলে অভিযোগ উঠেছে।
নন্নী ইউপি চেয়ারম্যান একেএম মাহবুবুর রহমান রিটন বলেন, নন্নীবাজারে কোন ধরনের অপরাধ, অন্যায় কাজকে আশ্রয়-প্রশ্রয় বা ছাড় দেয়া হয় না। আটক যুবককে পুলিশের অপেক্ষায় থেকে ইফতারের আগ মুহূর্তে ৩টা ১ হাজার টাকার জাল নোট ও একটি মোবাইলসহ আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য থানার উদ্দেশ্যে পাঠিয়েছিলাম। কিন্তু থানায় পৌঁছার পূর্বেই অঘটন ঘটেছে। আর এর মধ্যে দিয়ে ওই অপরাধী সহজেই রক্ষা পেয়ে গেল।
এ ব্যাপারে নালিতাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বছির আহমেদ বাদল বলেন, ঘটনাটি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের মাধ্যমে জানার পর আটক যুবককে ইউপি ভবনেই কিছুক্ষণ রাখতে বলেছিলাম। কিন্তু ইফতারের সময় ঘনিয়ে আসায় তাকে গ্রাম পুলিশ দিয়ে থানার উদ্দেশ্যে পাঠানো হয়েছিল। পথে একবার সে পালানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছে। এরপর তাকে স্থানীয় এক সাংবাদিক মহানুভবতা দেখাতে গিয়ে ছেড়ে দিয়েছেন। তার মতে, থানায় পৌঁছার পূর্বেই ওই অঘটন ঘটেছে। তাই পুলিশের করার কি আছে?

Charu Barta24 । । চারু বার্তা ২৪

মন্তব্য করুন