শেরপুরে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ, হামলা, ভাংচুর, লুটপাট ॥ আহত ১০

Views
Charu Barta24 । । চারু বার্তা ২৪


স্টাফ রিপোর্টার:
শেরপুর শহরের দীঘার পাড় মহল্লায় সম্ভাব্য দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে কয়েক দফায় সংঘর্ষ, হামলা ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। এসময় মহিলাসহ অন্ততঃ ১০ জন আহত হয়েছে। আহতদের শেরপুর জেলা ও বিভিন্ন বেসরকারী হাসপাতালে ভর্তি ও চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

জানা যায়, শেরপুর পৌরসভার ৯ নং ওয়ার্ডে টানা দুই দফায় কাউন্সিলর নির্বাচিত হন আমির হোসাইন বাদশা তালুকদার। তার সাথে গত নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে লড়াই করে হেরে যান আরেক প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ফখরুল ইসলাম। এবারও নির্বাচন ঘনিয়ে আসায় কাউন্সিলর প্রার্থী ফখরুল ইসলাম তফসিল ঘোষণা আগে থেকেই প্রচারণা চালানোসহ বাদশা তালুকদারের সমর্থকদের তার দলে ভেড়াতে ও এলাকার আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা করে আসছিলেন। এরই ধারাবাহিকতায় তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে সোমবার দু দফায় ফখরুল ইসলামের নেতৃত্বে আলাল, দেলোয়ার, বাচ্চু মিয়া, নেলু মিয়া, আরশাদ আলীসহ একদল সন্ত্রাসী বাদশা তালুকদারের সমর্থকদের উপর হামলা চালায়। ওইসময় আবেদা বেগম, সুজন মিয়া, সোহেল মিয়াসহ অন্ততঃ ১০ জন আহত হন। বাড়িঘরে হামলা ও ভাংচুর চালিয়ে লুটপাট করা হয়।

এব্যাপারে কাউন্সিলর বাদশা মিয়া জানান, প্রতিপক্ষ খাইরুল ও তার সমর্থকরা তার সমর্থকদের ওপর হামলা চালিয়েছে। এ ঘটনায় তিনি সুষ্ঠু তদন্ত করে বিচার দাবী করেন।
ক্ষতিগ্রস্থ মোশারফ হোসেন বলেন, সন্ত্রাসীরা তার বাড়িঘর ভাংচুর লুটপাট করেছে এবং তার স্ত্রীকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে। তিনি এর বিচার দাবী করেন।
ক্ষতিগ্রস্থ বাবুল তালুকদার দাবী করেন, তিনি একজন সাধারণ ব্যবসায়ী। তিনি কোন রাজনীতি করেননা। কেন তার বাড়ীতে হামলা ও লুটপাট করা হলো। তিনি এ ঘটনার জন্য দায়ী ব্যক্তিদের বিচার দাবী করেন।
অভিযুক্ত খাইরুল ইসলামের বাড়ীতে গেলেও তাকে কোথাও পাওয় না যাওয়ায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।
এ ব্যাপারে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, দিঘারপাড় এলাকায় ২ কাউন্সিলর প্রার্থীর মধ্যে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে গোলযোগ হয়েছে এবং ৩ জন আহত বলে শুনেছি। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তবে এখনও কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Charu Barta24 । । চারু বার্তা ২৪

মন্তব্য করুন